কবিতা সমগ্রঃ ১ 
প্রদীপ সরকার 

।।সাঁঝ।।

 

(১)

আমি এক ছোট্ট পাখির গল্প বলি

সাঁঝ বিকেলে,

গোধূলির স্বয়ম্বরে।


(২)

দামাল সাঁঝের নীলাভ বেতাল সন্ধি,

ঘূর্ণির বাতায়নে,

আমার বিভোল স্পন্দিত মনপদ্ম।

 

(৩)

সাঁঝে বৃষ্টি মেঘ-মল্লার বীণ।

মৃদুতা, বাদল, সন্ধ্যার ঝড়,

নিপুন ধূলার কঙ্কন-চুড়ি নিক্কন।


(৪)

তৃষিত নয়নে তোর সাঁঝ নামে,

নীড়ে ফেরা পাখালি বাতাস,

সোনালি রোদ্দুর-প্রাণ আগামী সকাল প্রত্যাশে।


(৫)

স্বপ্ন ও নক্ষত্রের আলো

সাঁঝে সান্ধ্য-ইমন কল্যান,

গহীন আকাশ নীলজল সবুজ প্রবাল।

 

(৬)

সমস্ত পৃথিবী স্থবীর হয়ে গেলে

বাতাস থাকে না বসে নিরুত্তর ঘাস-পানে চেয়ে;

তবু আমি ভালোবাসি ভালোবাসি সাঁঝ-গোধুলির ভাষা।

(৭)

সবাই হাসতে পারে,

কিন্তু সবাই হাসাতে পারে না,

হাস্যরসের সৃষ্টি এক শৈল্পিক অবদান।

(৮)

বড় এক অদ্ভুত সময় - বিবর্ণ সাজানো দিন ক্লান্ত,

আঙ্গিনা ভরানো ছিল সুখ-ফুলে

নিঃশব্দে লুকালো তারা, ফুটিলো না আর মনদুখে।

(৯)

আমার প্রাচুর্য্য, আমার অভাব, আর্তি,

আমার দেনা পাওনার বিনিময়

আমার শঙ্খনীল ওড়ার ধূমকেতু।

(১০)    

দলছুট ওই রঙিন হরিণ,

বাঘের চোখ,

প্রতিবাদী ভাষা কঠিন হোক।

(১১)

জ্যোৎস্নার পারাবত ধীরগতি বয়ে যায়

অবসাদ কিছুটা দাঁড়িয়ে গেল গলিপথে

কাটাতে সময়।

 

(১২)

বিরল জ্যোৎস্না

ঢেউ লহরী ছন্দ

ঊর্বশী অনাবিল সৈকতে

 

(১৩)

অচেনা সখী

তব আঁখি সুরে

ভাসে গোধূলির রূপকথা।

 

(১৪)

রোদ্দুরে পিঠ সেঁকছে নদীর কন্যা,

এবং বন্যা

গেছে সুপ্ত গুহায় নিদ্রায়।

 

(১৫)

তীব্র দহন,

বসে আছি মেঘ জলকণা তোর জন্যে,

বাদল অঝোর বিদ্যুৎ তোর জন্যে।

(১৬)

কপোতীর প্রেমে মশগুল সাঁঝবেলা,

পারাবত-প্রিয়া সহজে ধরেছে মেঘ-মল্লার তান,

নীল কন্যা আকাশের গাঙে উজানে বাইছে দাঁড়।

 

ত্রিপর্ণ

(১৭)

সময় পালটে যায় কালের ভ্র ুকুঠিতে

কে যে আজ বাইছে উজানে

সময়ের অনন্ত গাঙ্গে।

 

(১৮)

আমি চলে যাব আজ কিংবা কাল

উদিচী ঊষার অন্ত্রে

আগ বহ্নি সুখে।

 

(১৯)

এ এক অন্য আমি

ক্ষুব্ধ বিকেল ক্ষিপ্ত সকাল

অপমান সইতে নারি।

 

(২০)

মৃত জীবের গন্ধ বয়ে আনে ভয়াল সংকেত।

মৃত্যুর গন্ধ বয়ে আনে বিপদের সংকেত

গুঁড়ি মেরে দিন এগোচ্ছেঃ  প্রতিশোধ।

 

(২১)

দুইটি মূর্খ তখন উঠিয়াছে জেগে

ঘুরিতেছে তপোবন মাঝে।

 

(২২)

তোমার চোখে নিদ্রা এলে দুঃখ পেল চাঁদ।

আর দুমুঠো ভাত দিবি মা,

পেটের খোলের কোনে।

 

(২৩)

ক্ষীণায়ু সন্ধ্যায়,

প্রিয়তমা নিয়ে এস সমুদ্রে প্রলয়

উপত্যকা জুড়ে আনো মেঘের কুয়াশা।

 

(২৪)

নিরাপদে নীড় বাঁধছে মেঘের কন্যা

ঢুকছে দ্বীপে মৌসুমি প্রিয় বায়ু।

 

(২৫)

তুমি আমার মন ছুঁয়েছ,

আমি তোমার মন ছুঁয়েছি গভীরতায়।

 

(২৬)

ফিরে এস বৃত্তে আবার,

এস থাকি এক সাথে বৃত্তের ভিতরে,

নিয়ামক বৃত্ত ঘোরে শ্বাশত জ্যোৎস্নায়।

 

(২৭)

জলাবদ্ধ নিম্ন ভূমিরা বাড়ছে।

সরল আদিমতা জানে নাকো, খোঁজে নাকো পথ

কেমনে দমিয়ে রাখা যায় কামনা ও প্রবৃত্তির স্রোত।

 

(২৮)

লোভী এক সমুদ্রের ঢেউ ছুঁয়ে দিল বালুকাবেলা,

আর শঙ্খ হেসে সরে গেল আরো একটু দূরে

গোধূলির বাতাসের সাথে কবোষ্ণ রোদে।

 

(২৯)

মন ছাড়,

সে গতি কতটা দ্রুত হবে তুমি জানো।

অন্ধকারে ডুবে আছে মৃত হাঙরের ফিন্।

 

(৩০)

সমুদ্রের উপকূলে বাস, সমুদ্রের তীরে ঘাস ঘর,

সামুদ্রিক হাওয়া, মধ্যাহ্নে হাজার বছর

রূপকথা হয়ে যায় কাঁখে করে নিয়ে আসা জল।

 

(৩১)

এক দীর্ঘশ্বাস গভীর, অচেনা অন্তর,

এক বুক সতেজ বাতাস, উপকূল ঝড়,

এক বুক আমার প্রশ্বাস।

 

চতুর্ষ্পর্নী

(১)

অদৃশ্য আঁধার ভাসে,

অভিমানী স্বপ্ন ভাসে,

এসে যায় নিশ্চিন্ত রাতের আড়ালে,

মেঘলিমা কোমল কঙ্কনে।

 

(২)

কুঁড়ে ঘর ছাদে খড়ের আড়ালে চাঁদ যে লুকালো মুখ

ঝোপে ঝিঁঝিঁ ডাকে সাঁঝের বেলাতে,

শিউলি ফুটবে কাল,

এই নির্জনে তুচ্ছ প্রেমের সুখ।

 

(৩)

আশ্চর্য্য মানুষের সাথে পরিচয় হলে পরে

আলাদীন আশ্চর্য্য প্রদীপ

আশ্চর্য্য কিছু অভিজ্ঞতা জড়ো হয়

মনের অলিন্দে, আনাচে কোনাচে।

 

(৪)

ভালোবাসা এক সবুজ প্রাণের ক্ষেত,

স্বর্নের বেলাভুমি,

আলো-আঁধারির আবছায়া মাখা

গোধুলির ধুলিকণা।

 

(৫)

তুমি কি সেই তরুণ ফাল্গুনী 

এস আজ গান শোনা যাক

অন্য এক নিথর

অথচ সবাক শূণ্যের কথকথা।

 

(৬)

সময় কিছু ভুল ছিল

তাই আলগা বাঁধন,

সময় কিছু ভুল ছিল

তাই মিলনহীনা।

 

(৭)

অলস সময় জাবনা কাটে

নদীর ধারে

বাদল মেঘ বৃষ্টি ধরে

জলকন্যার আঁচল ভরে।

 

(৮) ।।প্রেরণা তুমি।।

আমার প্রেরনা ঘুরে ফিরে দেখে

চোখ মুখ অবয়ব,

হারানো ডানার সুর ফিরে আসে

কোটি কোটি সময়ের পর।

 

(৯)

সেই কবে থেকে

ঘুম আসেনাকো চোখে!

অনেক দিন,অনেক রাত,

অনেক প্রহর  ধোঁকে। 

(১০)

যাজ্ঞসেনী, সাদা পোষাকে

তোমাকে দারুণ লাগে,

লাগে দারুন তোমার অমন

সাদা দাঁতের হাসি।

 

(১১)

আনমনে উড়ে চলা পাখি

মুছে ক্লান্তি সব 

সূর্য্যের অলস উত্তাপে,

মন তোকে ফেরাবে রোদ্দুরে। 

 

(১২)

পাগলাঝোরা কল্পনাতে সকাল বিকাল,

মেঘলা দিন কেমন হবে, উড়বে ময়ূর,

পাহাড় গ্রীবায় ‘শাঁওলী’-নামী কন্যা কেমন,

সহজ কথার উপাসনা শূণ্য প্রতীক।

 

(১৩)

মনের মিল তোমার আমার সখি,

উড়ে যাওয়া, ডানা মেলা এক পাখি,

ইতি টানব তোমার আমার কথায়?

সে তো ক্ষণস্থায়ী সময়ের প্রলাপ।

 

(১৪)

একটা বিন্দু বৃত্ত ঘুরছে গতিময় কাব্যের মত,

ক্রমশঃ ভেসে উঠছে পূর্ণিমা চাঁদ,

নীল শিখা কাঁপছে, নড়ছে, ব্যাপ্তিতে ছড়িয়ে পড়ছে

ব্রহ্ম মানসে।

 

(১৫)

জলবায়ু, জলাশয়,

বেলে হাঁস, জলের ডাহুক,

রাজহংসী বসে আছে সুর্যাস্তের শেষে

জলাভূমে রাজার টিলায়।

 

(১৬)

আগুনের তাপ ঝলসে দেয় মনআর পুরানো অতীত,

আগুনের তাপ নিয়ন্ত্রণ জোগায় উত্তাপ ও অন্ন,

অথচ সেই পাবক হয়ে ওঠে দারুন দাহক

যদি না তাকে বশ মানাতে পারো।

 

(১৭)

রূপকভাবে লিখছি,

তবু তুমি তো কিছু বলছ না।

ব্যস্ত আছ বুঝতে পারি,

অলীক কথা ভাবছি না।

 

(১৮)  ।।তুমি।।

আজকে তুমি বইছ অন্য স্রোতে

পৈঠা আছে অন্য হাতেতে আলগা, 

পশমী মেঘ উড়ছে, খেলছে, দুলছে,

নীল কাব্যে বসছে শিকড় একটা।

 

(১৯)  ।।মন।।

বর্ণরেখায় ভরিয়ে দিচ্ছে মন,

আমার সুজন জন।

আমার আপন জন,

মনের থেকেও প্রিয় আমার জন।

 

(২০)

ঘেঁটে দেখে নিও ছাইয়ের ভিতর

আগুন কিছু থাকল কি না। 

থাকলে আগুন, আঁচও আছে,

হাপর নিও ফুলকি হবে।

 

(২১)

দুলকি চালে চলতে পারো

অতীত বাতায়নে,

দুরন্ত ঝড় ছড়িয়ে দিও

দীর্ঘ ঘুমে তুষার চিরে দিয়ে।

 

(২২) ।।ভোর।।

যখন রাত প্রায় শেষ হয়ে আসে,

ক্রমে সূর্য্য এই প্রায় উঠে এলো পুবের সীমায়,

ছুঁয়ে ফেলি দিকচক্রবাল

এ সময় মসৃণ সময়।

 

(২৩)  ।।সময় কম।।

তোমার এখন সময় আছে ঘৃণা করার?

জীবন এত প্রচুর না কি যুদ্ধ হবে?

তোমার এখন সময় আছে ভালবাসার?

জীবন আমার অল্প, খানিক ভালবাসো। 

 

(২৪)

আমি এক রাজার নীরব অট্টহাসি

পাগলাখাকি জ্যোৎস্না ভেজা ভগ্ন বাঁশি

আলোর রেখা প্রাণ আঘাতি ঝর্ণাতলা

মাটির কলস শুষ্ক পুরুষ, আগুন গোলা।

 

(২৫)  ।।জীবনের সত্যি কথাগুলি।।

রূপকথা

এই সব জীবনের সব সত্যি কথা

ঘুরে ফেরে কালজয়ী হয়ে

বন্ধ্যা স্বপ্ন জন্ম নেয় নতুন বিকেলে।

 

(২৬)

সোনার ক্ষেতের ধান

ফুরিয়েছে অঘ্রাণের মাঠে, 

জীবন বিষন্ন হ’লে

নীল ডিমে ঢেকে রাখো বিষ।

(২৭)

উপকূলে উদাসীন হাওয়া কিঞ্চিত হারায় উৎসাহ।

তাই, বঙ্গোপসাগরের থেকে কে জানি

এনেছে বয়ে উদ্যমী ঈশানি বাতাস।

সন্ন্যাসিনী সূর্য্য দেখে সভ্যতার প্রথম ভোরেতে।

Please mention the "name of the articles and the auth" you would like to comment in the following box... Thank you.

Email : maadhukariarticles@gmail.com

​​​

© 2017 by Maadhukari.com

Bengali Online Magazine

Maadhukari explores Bengali Literature Around The World